Chaturdasha Temple

From Wikipedia, the free encyclopedia
Jump to: navigation, search

The Chaturdasha Temple is a Hindu temple (mandir) situated near Old Agartala, India, and features the Bengal dome patterned after the roofs of village huts in Bengal. The dome is surmounted by a stupa-like structure which reveals traces of Buddhist influence. This temple was built in honour of fourteen deities, together called the Chaturdasha Devata, by King Krishna Manikya Debbarma of Tripura in 1761 and these deities are ceremoniously worshipped during Kharchi Puja. The Kokborok names of the fourteen deities are Lampra, Akhatra, Bikhatra, Burasa, Thumnairok, Bonirok, Sangroma, Mwtaikotor, Twima, Songram, Noksumwtai, Mailuma, Khuluma and Swkalmwtai.

চৌদ্দ দেবতার মন্দিরটি একটি পবিত্র মন্দির যা আগরতলা থেকে প্রায় 14 কিলোমিটার দূরত্বে আগরতলা নামে পরিচিত। ত্রিপুরা রাজা কৃষ্ণ মানিকয়া দেববর্মার দ্বারা নির্মিত চৌদ্দ দেবতাদের এবং দেবীদের সম্মানার্থে এই মন্দিরটি নির্মিত হয়েছিল এবং এই দেবতাদের আনুষ্ঠানিকভাবে "খারকি পূজা" সময় পূজা করা হয়।চৌদ্দ দেবী মন্দিরটি "চরতুরদশা মন্দির" নামেও পরিচিত। আগরতলাতে মন্দিরটি অন্যতম প্রধান উৎস।

স্থানীয় এক ভাষ্য অনুসারে ত্রিপুরার চৌদ্দ দেবী মন্দিরের এক ব্যক্তি একবার আগরতলায় আসেন 14 বার। এই মন্দিরটির স্থাপত্য বাংলা-বাঁকুড়া শৈলীর একটি মিলনশৃঙ্গ।মন্দিরের চারপাশে গম্বুজ স্থাপত্য ত্রিপুরাতে বৌদ্ধ সংস্কৃতির চিহ্নগুলি স্মরণ করিয়ে দেয়। এই মন্দির "খারচী পূজা" এর বিখ্যাত জায়গা, যা উপজাতীয় উত্স থেকে উদ্ভূত হয়েছে।এই উৎসব জুলাই মাসে প্রতিবছর ত্রিপুরার সর্বত্র হাজার হাজার ভক্তকে আকর্ষণ করে।

চৌদ্দ দেবী মন্দির প্রতিষ্ঠার ইতিহাস

আগরতলাতে অনেক ধ্বংস আছে কিন্তু এখনও অনেক দর্শক বিশ্বব্যাপী সর্বত্র আকর্ষণ করে।শমশের গাজী (1748-1760) এর ১২ বছরের শাসনের শেষের দিকে তৎকালীন রাজা কৃষ্ণ মানিক্য পূর্ব বাংলার সমভূমির মধ্যবর্তী ব্রিজের দ্বারা উগ্রপন্থী ছিনতাইয়ের শিকারে পরিণত হন এবং উদয়পুর থেকে পুরাণ হাওয়িলে পুরাতন হাভেলি বা পুরাতন আগরতলায় 1760 সালে1838 সালে আগরতলা শহরটি স্থানান্তরিত হওয়ার আগ পর্যন্ত এটি রাজধানী ছিল।

চৌদ্দ দেবী মন্দিরের দেবতা

নামটি নির্দেশ করে, এই মন্দিরটি 14 টি দেবদেবীর কাছে নিবেদিত, যার প্রতিটিই কেবল তার মাথা দ্বারা উপস্থাপিত হয়।চৌদ্দ দেবদেবীর নামগুলি নিম্নরূপ:

হারা (শিভা),উমা (দুর্গা),হরি (বিষ্ণু),মা (লক্ষ্মী),বানি (সরস্বতী),কুমার (কার্তিক),গণপতি (গণেশ),বিদি (ব্রাহ্মা),কিশয় (দুনিয়া),অভি (সমুদ্রের ঈশ্বর),গঙ্গা (পবিত্র হিন্দু নদী),শিখি (অগ্নি),কাম (প্রেমের ঈশ্বর)

চৌদ্দ দেবী মন্দির পর্যন্ত পৌঁছাতে কিভাবে

চৌদ্দ দেবী মন্দির রাজধানী শহরের কাছে অবস্থিত এবং সিলচার, গুয়াহাটি, করিমগঞ্জ ও শিলং থেকে অনেক বাস সার্ভিস রয়েছে।আগরতলা বিমানবন্দর নিকটতম বিমানবন্দর। এটি বাস ও ট্যাক্সি দ্বারা সহজে অ্যাক্সেসযোগ্য। নিকটতম রেল সেবা কুমারঘাট রেলওয়ে স্টেশন থেকে এসেছে। বেশ কয়েকটি বৌ- * আমাদের এবং ট্যাক্সিগুলি বিমানবন্দর ও রেল স্টেশনের উভয় পাশেও সহজেই পাওয়া যায়।

Last edited by Mr. Ragচৌদ্দ দেবতার মন্দিরটি একটি পবিত্র মন্দির যা আগরতলা থেকে প্রায় 14 কিলোমিটার দূরত্বে আগরতলা নামে পরিচিত। ত্রিপুরা রাজা কৃষ্ণ মানিকয়া দেববর্মার দ্বারা নির্মিত চৌদ্দ দেবতাদের এবং দেবীদের সম্মানার্থে এই মন্দিরটি নির্মিত হয়েছিল এবং এই দেবতাদের আনুষ্ঠানিকভাবে "খারকি পূজা" সময় পূজা করা হয়।চৌদ্দ দেবী মন্দিরটি "চরতুরদশা মন্দির" নামেও পরিচিত। আগরতলাতে মন্দিরটি অন্যতম প্রধান উৎস।

স্থানীয় এক ভাষ্য অনুসারে ত্রিপুরার চৌদ্দ দেবী মন্দিরের এক ব্যক্তি একবার আগরতলায় আসেন 14 বার। এই মন্দিরটির স্থাপত্য বাংলা-বাঁকুড়া শৈলীর একটি মিলনশৃঙ্গ।মন্দিরের চারপাশে গম্বুজ স্থাপত্য ত্রিপুরাতে বৌদ্ধ সংস্কৃতির চিহ্নগুলি স্মরণ করিয়ে দেয়। এই মন্দির "খারচী পূজা" এর বিখ্যাত জায়গা, যা উপজাতীয় উত্স থেকে উদ্ভূত হয়েছে।এই উৎসব জুলাই মাসে প্রতিবছর ত্রিপুরার সর্বত্র হাজার হাজার ভক্তকে আকর্ষণ করে।

চৌদ্দ দেবী মন্দির প্রতিষ্ঠার ইতিহাস

আগরতলাতে অনেক ধ্বংস আছে কিন্তু এখনও অনেক দর্শক বিশ্বব্যাপী সর্বত্র আকর্ষণ করে।শমশের গাজী (1748-1760) এর ১২ বছরের শাসনের শেষের দিকে তৎকালীন রাজা কৃষ্ণ মানিক্য পূর্ব বাংলার সমভূমির মধ্যবর্তী ব্রিজের দ্বারা উগ্রপন্থী ছিনতাইয়ের শিকারে পরিণত হন এবং উদয়পুর থেকে পুরাণ হাওয়িলে পুরাতন হাভেলি বা পুরাতন আগরতলায় 1760 সালে1838 সালে আগরতলা শহরটি স্থানান্তরিত হওয়ার আগ পর্যন্ত এটি রাজধানী ছিল।

চৌদ্দ দেবী মন্দিরের দেবতা

নামটি নির্দেশ করে, এই মন্দিরটি 14 টি দেবদেবীর কাছে নিবেদিত, যার প্রতিটিই কেবল তার মাথা দ্বারা উপস্থাপিত হয়।চৌদ্দ দেবদেবীর নামগুলি নিম্নরূপ:

হারা (শিভা),উমা (দুর্গা),হরি (বিষ্ণু),মা (লক্ষ্মী),বানি (সরস্বতী),কুমার (কার্তিক),গণপতি (গণেশ),বিদি (ব্রাহ্মা),কিশয় (দুনিয়া),অভি (সমুদ্রের ঈশ্বর),গঙ্গা (পবিত্র হিন্দু নদী),শিখি (অগ্নি),কাম (প্রেমের ঈশ্বর)

চৌদ্দ দেবী মন্দির পর্যন্ত পৌঁছাতে কিভাবে

চৌদ্দ দেবী মন্দির রাজধানী শহরের কাছে অবস্থিত এবং সিলচার, গুয়াহাটি, করিমগঞ্জ ও শিলং থেকে অনেক বাস সার্ভিস রয়েছে।আগরতলা বিমানবন্দর নিকটতম বিমানবন্দর। এটি বাস ও ট্যাক্সি দ্বারা সহজে অ্যাক্সেসযোগ্য। নিকটতম রেল সেবা কুমারঘাট রেলওয়ে স্টেশন থেকে এসেছে। বেশ কয়েকটি বৌ- * আমাদের এবং ট্যাক্সিগুলি বিমানবন্দর ও রেল স্টেশনের উভয় পাশেও সহজেই পাওয়া যায়।আমি রঘুনন্দন দেব আপনাদের সুবিধাথে এই তথ‍্য উপস্হাপন করলাম কোনো ভুল থাকলে স‌ংশোধন করে নেবেন।

Last edited by Raghunandan Deb reads in class ix of Netaji Subhas Vidyaniketan to help his friends in case of project